শিরোনাম
জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার না করলে হরতালসহ কঠোর কর্মসূচির ডাক সিপিবি'র ইউরিয়া সারের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে কৃষক সমিতির বিক্ষোভ ইউরিয়া সারের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে গাইবান্ধায় সিপিবির বিক্ষোভ লামার দগ্ধ পাহাড়ে স্বপ্নের স্কুল লোড শেডিং এর প্রতিবাদে হারিকেনের আলোয় রাজপথে লেখাপড়া জাতীয় নির্বাচনে সংখ্যানুপতিক প্রতিনিধিত্ব, ‘না’ ভোট, জনপ্রতিনিধি প্রত্যাহারের বিধানের দাবি সিপিবি'র কঙ্গোতে জাতিসংঘবিরোধী বিক্ষোভে ৩ শান্তিরক্ষীসহ নিহত ১৫ ফিলিপিন্সে ৭.১ মাত্রার ভূমিকম্প দেশের জনসংখ্যার অর্ধেকের বেশী নারী শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী ছুরিকাঘাতে নিহত

পাঞ্জাবের উপনির্বাচনে ইমরানের পিটিআইয়ের জয়

পাঞ্জাবের উপনির্বাচনে ইমরানের পিটিআইয়ের জয়

পাকিস্তানের রাজনীতিতে ফের ঘুরে দাঁড়িয়েছেন ক্ষমতা হারানো ইমরান খান। দেশটির গুরুত্বপূর্ণ প্রদেশ পাঞ্জাবের উপনির্বাচনে বাজিমাত করেছে তাঁর দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই)। সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হিসেবে ফের প্রাদেশিক পরিষদের নিয়ন্ত্রণ নিতে যাচ্ছে দলটি। খবর জিও নিউজ ও ডনের।

 

পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচনে পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) প্রার্থী হামজা শাহবাজকে ভোট দেওয়ায় পিটিআইয়ের ২০ জনের আসন শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

 

গতকাল রোববার এসব আসনে ভোট হয়। বেসরকারি ফলাফলে ১৫টিতেই জয় পেয়েছে পিটিআই। ৪টি আসনে জয় পায় পিএমএল-এন। বাকি আসনটিতে জয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী।

লাহোর হাইকোর্টের আদেশ অনুযায়ী, ২২ জুলাই ফের মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ওই ভোটাভুটিতে প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের ছেলে হামজা শাহবাজকে সরিয়ে এখন জয়ের দ্বারপ্রান্তে পিটিআই।

সর্বশেষ ফলাফল অনুযায়ী, ৩৭১ আসনের পাঞ্জাব প্রাদেশিক পরিষদে পিটিআইয়ের আসনসংখ্যা ১৭৮। সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য ১৮৬ আসনের প্রয়োজন হলেও চিন্তা নেই ইমরানের। কারণ, মিত্র পাকিস্তান মুসলিম লিগ-কায়েদের (পিএমএল-কিউ) ১০টি আসন রয়েছে।

 

অন্যদিকে পিএমএল-এনের আসনসংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬৭। অবশ্য উপনির্বাচনের কয়েক দিন আগে তাঁদের দুই আইনপ্রণেতা পদত্যাগ করেছেন। ওই দুটি আসন শূন্য রয়েছে। মিত্র পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) আসন ৭টি। এই নির্বাচন আরও একটি কারণে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পিটিআইয়ের প্রধান ইমরান খান প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে বিদায় নেওয়ার পর দেশটিতে প্রথম কোনো নির্বাচন এটি।

 

এই বিজয়ে পাঞ্জাবের জনগণকে ধন্যবাদ জানিয়ে তাঁদের সাহসিকতার প্রশংসা করেছে পিটিআই। দাপ্তরিক টুইটারে দলটি বলেছে, ‘এই ঐতিহাসিক বিজয়ের মধ্য দিয়ে আপনারা জানিয়ে দিয়েছেন আমরা আত্মসম্মানবোধসম্পন্ন জাতি। এখন পাকিস্তানের জনগণ যে সিদ্ধান্ত নেবেন, সেটাই ঘটবে। আমাদের ভাগ্য নির্ধারণ করে দেওয়ার ক্ষমতা কোনো বিদেশি শক্তির নেই।’

 

এদিকে, পরাজয় মেনে নিয়েছে পিএমএল-এন। দলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মারিয়াম নওয়াজ বলেছেন, দলের উচিত ‘আন্তরিকভাবেই’ এই ফলাফল গ্রহণ করা। জনগণের পছন্দ মাথা পেতে নেওয়া।