শিরোনাম
জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার না করলে হরতালসহ কঠোর কর্মসূচির ডাক সিপিবি'র ইউরিয়া সারের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে কৃষক সমিতির বিক্ষোভ ইউরিয়া সারের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে গাইবান্ধায় সিপিবির বিক্ষোভ লামার দগ্ধ পাহাড়ে স্বপ্নের স্কুল লোড শেডিং এর প্রতিবাদে হারিকেনের আলোয় রাজপথে লেখাপড়া জাতীয় নির্বাচনে সংখ্যানুপতিক প্রতিনিধিত্ব, ‘না’ ভোট, জনপ্রতিনিধি প্রত্যাহারের বিধানের দাবি সিপিবি'র কঙ্গোতে জাতিসংঘবিরোধী বিক্ষোভে ৩ শান্তিরক্ষীসহ নিহত ১৫ ফিলিপিন্সে ৭.১ মাত্রার ভূমিকম্প দেশের জনসংখ্যার অর্ধেকের বেশী নারী শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী ছুরিকাঘাতে নিহত

জুলাইয়ে ৪৮ শিশুসহ ধর্ষণের শিকার ৭৩ জন: মহিলা পরিষদ

জুলাইয়ে ৪৮ শিশুসহ ধর্ষণের শিকার ৭৩ জন: মহিলা পরিষদ

সদ্য সমাপ্ত জুলাই মাসে ৪৮ জন কন্যাশিশুসহ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন ৭৩ জন। এছাড়া, নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ২৯৫ জন নারী ও কন্যাশিশু। আর বিভিন্ন কারণে ৯ জন কন্যাশিশুসহ ৪২ নারীকে হত্যা করা হয়েছে।

 

সোমবার (১ আগস্ট) বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। দেশের ১৩টি দৈনিক জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ বিশ্লেষণ করে এ তথ্য জানায় সংগঠনটি।

 

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, নির্যাতনের শিকার ২৯৫ জনের মধ্যে ধর্ষণের শিকার কন্যাশিশুসহ ৭৩ জন। এর মধ্যে ১০ জন কন্যাশিশু ও ৯ জন নারীসহ ১৯ জন দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। একজন কন্যাশিশু ও ২ জন নারীকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। একজন কন্যাশিশু ধর্ষণের পর আত্মহত্যা করেছে। এ ছাড়া ৯ জন কন্যাশিশুসহ ১৩ জনকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে।

 

যৌন নিপীড়নের বিষয়ে এতে বলা হয়, ১১ জন যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছেন। এর মধ্যে ৮ জন কন্যাশিশু। ৯ জন উত্ত্যক্তের শিকার হয়েছেন, এর মধ্যে ৮ জন কন্যাশিশু। নারী ও কন্যাশিশু পাচারের ঘটনা ঘটেছে ৬টি, এর মধ্যে ৪ জন কন্যাশিশু। এসিডদগ্ধের শিকার হয়েছেন একজন। তিন জন অগ্নিদগ্ধের শিকার হয়েছেন।

 

নারী নির্যাতনের তথ্য তুলে ধরে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যৌতুকের কারণে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ১৬ জন। এদের মধ্যে ৫ জনকে যৌতুকের কারণে হত্যা করা হয়েছে। শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ১৮ জন, এর মধ্যে ৭ জন কন্যাশিশু। পারিবারিক সহিংসতার শিকার হয়েছেন ৬ জন। গৃহকর্মী নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ২ জন, এর মধ্যে একজনকে হত্যা করা হয়েছে।

 

হত্যার তথ্য তুলে ধরে এতে বলা হয়, বিভিন্ন কারণে ৯ জন কন্যাশিশুসহ ৪২ জনকে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া একজন কন্যাশিশুসহ ২ জনকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। ৮ জন কন্যাশিশুসহ ২৭ জনের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। ৬ জন কন্যাশিশুসহ ১৭ জনের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে ২ জন কন্যাসহ ৪ জন আত্মহত্যার প্ররোচনার শিকার হয়েছেন। ৮ জন কন্যাশিশুসহ ৯ জন অপহরণের শিকার হয়েছেন। এ ছাড়া একজন কন্যাশিশুকে অপহরণের চেষ্টা করা হয়েছে। ফতোয়ার ঘটনার শিকার হয়েছেন ৪ জন। ৪ জন কন্যাশিশুসহ সাইবার অপরাধের শিকার হয়েছেন ৬ জন।

 

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ আরও জানায়, আলোচ্য সময়ে বাল্যবিয়ের ঘটনা ঘটেছে ১০টি। বাল্যবিয়ের ঘটনা প্রতিরোধ করা হয়েছে ৯টি। এছাড়া ৩ জন কন্যাশিশুসহ ৮ জন বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন।